আলোময়.কম হোম,ইসলাম ও বিজ্ঞান, ফিডব্যাক,অংশ নিন fb page

শনিবার, ১২ জুলাই, ২০১৪

মুসা আ. এর ভবিষ্যদ্বানী করা নবী ঈসা আ. ছিলেন না, ছিলেন মুহাম্মাদ সা.

ওল্ড ও নিউ টেস্টামেন্ট দু কিতাবেই হজরত মুহাম্মাদ সা. এর ভবিষ্যদ্বাণী আছে। মূলত বাইবেল দুই অংশে বিভক্ত। ওল্ড টেস্টামেন্ট হলো যেটা মুসা আ. এর প্রতি নাযিল হয়েছিল। আর নিউ টেস্টামেন্ট হল ইঞ্জিল (অবশ্যই যা বর্তমানে বিকৃত)।
উদ্ধৃতিঃ
বুক অভ ডিউটরোনোমিঃ অধ্যায় -১৮, অনুচ্ছেদ-১৮
"আমি তাদের ভাইদের (ইহুদী জাতি) মধ্য থেকেই একজন নবী পাঠাবো যে হবে তোমার মতই (মুসা আ.), আমি তাকে দিয়ে আমার কথা বলাবো এবং আমি যা আদেশ দেবো সে তাই তাদের বলবে। "
খৃষ্টানরা বলে, এই ভবিষ্যদ্বাণী ঈসা আ. এর প্রতি ইঙ্গিত করে। যুক্তি হল, মুসা ও ঈসা (আ.) দু"জনেই ছিলেন জাতিতে ইহুদী, দু' জনেই ছিলেন নবী।
এগুলোই যদি মাপকাঠি হতো তবে, তবে বাইবেলে উল্লেখিত নবীদের মধ্যে যারা মুসা আ. এর পরে এসেছিলেন তাঁরা সবাই এই ভবিষ্যদ্বাণী পূরণ করেছিলেন যেমন সোলাইমান, দাউদ, ইয়াকুব, ইউসুফ আ. প্রমূখ।
বরং মুহাম্মাদ সা. এর সাথেই ঈসা আ. এর চেয়ে মুসা আ. এর বেশি মিল। কারণ-
১. দূ'জনরেই বাবা ছিলেন। কিন্তু ঈসা আ. আল্লাহর অলৌকিকত্বে বাবা ছাড়া জন্ম নেন। (ম্যাথিউ ১;১৮ এবং লুক ১;৩৫); কুর'আন ( আলে ইমরান ৩; ৪২-৪৭)
২. উভয়ে বিবাহিত ছিলেন এবং তাঁদের সন্তান ছিল। ঈসা আ. বিয়েও করেননি, সন্তানও তাঁর ছলো না
৩. উভয়ে স্বাভাবিকভাবে ইন্তিকাল করেন। বাইবেল ও কুর'আন দুটোই বলে ঈসা আ. এর স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি। আল্লাহ তাঁকে নিজের কাছে তুলে নিয়েছেন।
৪. নবী হবার পাশাপাশি দুজনেই ছিলেন রাষ্ট্রপ্রধান, দিতে পারতেন মৃত্যুদণ্ডের সাজা। (যীশু )ঈসা আ. বলেন, "আমার রাজত্ব এই পৃথিবীতে নয় ( গসপেল অব জন, ১৮;৩৬)
৫. দু'জনেই জীবদ্দশায়ই নবুওয়াতের স্বীকৃতি ও ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন। কিন্তু ঈসা আ. জীবদ্দশায় প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন।
৬. দু'জনেই অনুসারীদের জন্য নতুন আইন ও বিধান এনেছিলেন। ঈসা আ. নতুন কোন বিধান আনেন নি। (ম্যাথিউ ৫ ;১৭-১৮)
বাইবেলে মুহাম্মাদ সা. এর ভবিষ্যদ্বাণী নিয়ে জানতে পড়ুন আগামী পোস্টগুলো এখানে

ইমেইলে গ্রাহক হোন